Monday, June 22, 2015

মির্জা ফখরুলের মুক্তিতে আইনি বাধা নেই:প্রথম অালো

গাড়িতে অগ্নিসংযোগ ও নাশকতার আরও তিন মামলায় হাইকোর্ট থেকে অন্তর্বর্তী জামিন পেয়েছেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তাঁর আইনজীবীরা জানিয়েছেন, এর ফলে কারাগার থেকে তাঁর মুক্তি পেতে আর বাধা নেই। বিচারপতি মো. রেজাউল হক ও বিচারপতি মো. খসরুজ্জামানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ গতকাল রোববার পল্টন থানার তিন মামলায় মির্জা ফখরুলের অন্তর্বর্তী জামিন মঞ্জুর করেন। আদালতে জামিন আবেদনে
র পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী জয়নুল আবেদীন। সঙ্গে ছিলেন রাগীব রউফ চৌধুরী ও সগির হোসেন। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ফজলুর রহমান খান ও সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল মো. আলী জিন্নাহ। মির্জা ফখরুলের আরেক আইনজীবী এ কে এম এহসানুর রহমান জানান, ৫ জানুয়ারি ও এর পরবর্তী সময়ে মির্জা ফখরুলকে নতুন করে সাতটি মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়। এর সবগুলোতেই উচ্চ আদালত জামিন মঞ্জুর করেছেন। ফলে এখন তাঁর কারামুক্তিতে আইনগত বাধা নেই। আইনজীবী জানান, এ তিন মামলায় কেন মির্জা ফখরুলকে জামিন দেওয়া হবে না, তা জানতে আদালত রুল দিয়েছেন। চার সপ্তাহের মধ্যে ঢাকার জেলা প্রশাসককে রুলের জবাব দিতে হবে। রুল নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত তিনি জামিনে থাকবেন। গত ৬ জানুয়ারি জাতীয় প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে বের হওয়ার সময় গ্রেপ্তার হন ফখরুল। এরপর পল্টন থানায় নাশকতার ছয়টি ও মতিঝিল থানার একটি মামলায় তাঁকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়। গত ১৬ এপ্রিল পল্টন থানার এক মামলায় তিনি হাইকোর্ট থেকে জামিন পান। এরপর ১৮ জুন পল্টন থানার দুটি ও মতিঝিল থানার একটি মামলায় জামিন পান। গতকাল তিনি পল্টন থানার আরও তিনটি মামলায় জামিন পেলেন। ইতিমধ্যে কারাগারে অসুস্থ হয়ে পড়লে আদালতের নির্দেশে ১৩ জুন মির্জা ফখরুলকে কাশিমপুর কারাগার থেকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। চলতি বছরের শুরু থেকে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে দেশের রাজনীতি। ৫ জানুয়ারি ‘একতরফা’ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের বর্ষপূর্তি ঘিরে কর্মসূচি ঘোষণা করে বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০-দলীয় জোট। এ নিয়ে রাজধানীর পল্টন ও মতিঝিল এলাকাসহ নানা জায়গায় গাড়ি ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগসহ নাশকতার ঘটনা ঘটে। এ সময় পল্টন ও মতিঝিল থানায় মির্জা ফখরুলসহ বিএনপি-জামায়াতের অর্ধশতাধিক নেতা-কর্মীর বিরুদ্ধে একাধিক মামলা করা হয়। আইনজীবী ও পরিবারের সদস্যরা জানান, ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকার ক্ষমতায় আসার পর এই কয়েক বছরে মির্জা ফখরুলের বিরুদ্ধে ৭৯টি মামলা হয়েছে।